আমেরিকার ক্ষুধার্ত মানুষের জন্য


বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা (বাই) এর উদ্যোগে  ঈদকে সামনে রেখে গত রমজান মাসে  "Dry food drive"কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। আমেরিকার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ECHO (Ecumenical Community Helping Others) পরিচালিত  প্রকল্পে "বাই" এর এই কার্যক্রমে সংগৃহিত সামগ্রী এবং অর্থ প্রদান করা হয়।

 

বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা ইঙ্কের প্রাক্তন সভাপতি জনাব ওয়াহেদ হোসেনীর নেতৃত্ব পরিচালিত এই "Dry food drive" কর্মসূচীর ৩৫৫ পাউন্ড ফুড এবং সাড়ে তিন হাজার ডলারেরও বেশী অর্থ সম্প্রতি এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে প্রদান করা হয়। ভার্জিনিয়ার  স্প্রিংফিল্ডস্থ "ECHO" এর স্থানীয় কার্যলয়ের এই অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন "বাই" এর প্রাক্তন সভাপতি এবং  "Dry food drive" কমিটির চেয়ারম্যান জনাব ওয়াহেদ হোসেনী, "বাই" এর সভাপতি সফি দেলোয়ার কাজল, "বাই" এর পরিচালক এবং "Dry food drive"কার্যক্রমের কো-অর্ডিনেটর মিজানুর রহমান ভুঁইয়া।

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাই কমিশনে জাতীয় শোক দিবস পালিত

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাই কমিশনে জাতীয় শোক দিবস পালিত

 

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাই কমিশনে জাতীয় শোক দিবস পালন করেছে বাংলাদেশ দূতাবাস।  দূতাবাস আয়োজিত কর্মসূচির মধ্যে ছিল, জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা, আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল, বঙ্গবন্ধুর কর্ম ও জীবন নিয়ে প্রামাণ্য চিত্র প্রর্দশন।

মঙ্গলবার সকাল ৯টায় দূতাবাস প্রাঙ্গণে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং অর্ধনমিত রাখার মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। কর্মসূচির উদ্বোধন করেন মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মুহাঃ শহীদুল ইসলাম।

পরে রাষ্ট্রদূতের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও মালয়েশিয়া আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ। শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনের পূর্বে বঙ্গবন্ধুর আত্নার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়। পরে দূতাবাস কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন রাষ্ট্রদূত মুহাঃ শহীদুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে শোক দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দেওয়া বাণী পাঠ করে শোনান দূতাবাসের কাউন্সিলররা। এসময় বক্তব্য রাখেন দূতাবাসের কর্মকর্তা, মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ, যুব লীগ, সেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ ও ছাত্র লীগের নেতৃবৃন্দ।

সমাপনী বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত বলেন, জাতীয় শোক দিবসের শোক কে শক্তিতে পরিণত করতে হবে। এবং বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে সকল বাংলাদেশিদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান।

আলোচনা সভায় বক্তারা আরো বলেন, ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট রাতের আঁধারে স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানকে যারা হত্যা করেছে বাঙালি জাতি কখনো তাদের ক্ষমা করবে না। বিদেশে পালিয়ে থাকা বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আসামিদের ফেরৎ এনে দ্রুত ফাঁসির রায় কার্যকর করার দাবি জানান তারা।

আলোচনায় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনের নেতারা। বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাতের মধ্য দিয়ে কর্মসূচি শেষ হয়।

"বাই" এর জমজমাট পুনর্মিলনী উৎসব

 

 

 


অত্যন্ত আনন্দঘন ও উৎসবমূখর পরিবেশে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা ইনক (বাই) গত  ১৪ই  জুলাই  ভার্জিনিয়ার ম্যানাসাসস্থ উইন্ডাম গার্ডেন  হোটেলে ঈদপুনর্মিলনী উৎসব উদযাপন করল। অঝর বৃস্টিধারা উপেক্ষা করে ওয়াশিংটন ডিসিতে বসবাসকারী বাংলাদেশীরা সপরিবারে সন্ধ্যার  এই আনন্দ মিলনে যোগ দেন। সন্ধ্যা সাতটায় শুরু হওয়া অনুষ্ঠানের প্রথমেই ছিল অভ্যাগত অতিথিদের আনন্দ  আড্ডা ও স্মৃতিচারণ

 



 উৎসবের প্রগাঢ় স্মৃতিময়তা সবাইকে  নস্টালজিক করে তুলে কিছুটা সময়।  প্রবাসে বসে  উৎসবের রংগে  এই  আমেজের ছোঁয়া পাওয়া ছিল সত্যি খুব আনন্দদায়ক।



অনুষ্ঠানের শুরুতে ছিল  রকমারী খাবারের বৈচিত্রে নৈশ ভোজের  আয়োজন।



 ১৩ পদের বাহারী খাবারে আগত অতিথিরা তাদের রসনা তৃপ্ত করে ।


নৈশ ভোজের পর শুরু হয় দুই পর্বের অনুষ্ঠানমালা। সংগঠনের সভাপতি সফি দেলোয়ার কাজলের স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। এরপর আগত অতিথিদের মধ্যে
 বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা ইনক (বাই) এর প্রাক্তন সভাপতিবৃন্দদের মধ্যে উপস্থিত আবু সোলায়মান, ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন, ডঃ সুলতান আহমেদ, ওয়াহেদ হোসেনী, ইনারা ইসলাম এবং সাজদা সোলায়মানকে বিশেষ ভাবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানের এই পর্যায়ে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা ইনক (বাই) এর পক্ষ থেকে উওর আমেরিকার বাংলাদেশীদের পরিচালিত বিভিন্ন  স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন যারা বাংলাদেশে দুস্থ দরিদ্র জন গোষ্ঠীদের জন্য কাজ করছেন-তাদের কয়েকটি সংগঠনকে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেন। সংগঠনগুলি হলো- ডিস্ট্রেস চিলড্রেন ইন্টারন্যাশানাল (ডিসিআই), সোলায়মান ফাউন্ডেশন, "আগামী" এবং ফরওয়ার্ড হোপ। এ ছাড়া সিস্টার অর্গানাইজেশন-বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসি এর "সি আর পি" জন্য ফান্ড রাইজিং প্রকল্পে অনুদান প্রদান করা হয়।



'বাই" এর প্রাক্তন সভাপতি আনিস খান ডঃ পারভীন মরিয়ম (ডিসিআই), সাজদা সোলায়মান (সোলায়মান ফাউন্ডেশন), ফারজানা ক্লারা (আগামী), রেহানা পারভীন (ফরওয়ার্ড হোপ) এবং পারভীন পাটওয়ারী (বাগডিসি) এর হাতে টেক তুলে দেন।  



এরপর আগামী ১৯শে এবং ২০শে আগষ্ট অনুষ্ঠতব্য বাই পরিবেশিত  বহুল আয়োজিত নাটক 'পাল্কী" নিয়ে অনুষথিত হয় একটি বিশেষ পর্ব। পাল্কীর কলা কৌশলী এবং ব্যবস্থাপকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাই এর সভাপতি এবং পাল্কীর স্ত্রীপ্ট রাইটার সফি দেলোয়ার কাজল, সহসভাপতি এবং পাল্কীর পরিচালক কামরুল খান লিংকন, বাই এর প্রাক্তন সাধারন সম্পাদক
এবং পাল্কীর ফান্ড রাইজিং কমিটির কো-অর্ডিনেটর ডঃ ফাইজুল ইসলাম।  


সাংষ্কৃতিক পর্বের শুরুতেই ছিল বাই এর পরিচালক এবং তরুন সংগীত শিল্পী  আনন্দ খানের  তত্ত্বাবধানে প্রবাসে ভিন্ন পরিবেশে বেড়ে উঠা শিশু-কিশোরদের  গান। তাদের অনবদ্য পরিবেশনা সবাইকে মুগ্ধ করে রাখে। তাদের সবার কন্ঠে "রমজানের রোজার শেষে এলো খুশীর ঈদ" গানটির পরিবেশনা উপস্থিত অভিভাবক ও অতিথিবৃন্দকে আনন্দে উদ্বেলিত করে রাখে।
 

 


এরপর বিশেষ আকর্ষন ছিল  বাংলা আধুনিক গানের জনপ্রিয় শিল্পী   অনিলা চৌধুরীর  মনমাতানো গান। নিজের মৌলিক গান ছাড়াও জনপ্রিয় শিল্পীদের  আধুনিক গান দিয়ে সুরে সুরে  তিনি  গেয়ে  যান  তেরটি  গান। চমৎকার মিষ্টি  কন্ঠের অধিকারী অনিলা সুরের মূর্ছনায় সবাইকে মুগ্ধ করেন। অনিলার গানের  আনন্দের রেশ  ধরে অনুষ্ঠানের পরেও অনেকেই  ফটো সেশন আর আড্ডায় মগ্ন হয়ে থাকেন আরো কিছুটা সময়।

 


অনুষথানটি পরিচালনা করেন ফয়সল কাদের।

 



এভাবেই আনন্দ আর উৎসবমূখরতায় শেষ হয়  "বাই" এর ঈদ পুনর্মিলনী। বন্ধু-বান্ধব ও শুভানুধ্যায়ীদের এই মিলনমেলা আমাদের ব্যস্ততম মূহুর্ত্বগূলোতে যেন আরেকটি সুখময় স্মৃতির পাতা যোগ করে ।

 

 

 

'জাতীয় শোক দিবস' উপলক্ষে ব্রুকলিনে আলোচনা সভা


'জাতীয় শোক দিবস' উপলক্ষে ব্রুকলিনে আলোচনা সভা

 

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের মাসব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে ৯ আগস্ট বুধবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্ক সিটির ব্রুকলিনে আলোচনা সভা ও দোয়া-মাহফিল আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারি ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ। 

অতিথি হিসেবে মঞ্চে উপবেশন ও বক্তব্য রাখেন এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সম্পাদক নিজাম চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামসুদ্দিন আজাদ, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, সহ-সভাপতি লুৎফুল করিম, যুগ্ম সম্পাদক আইরিন পারভিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ ফারুক আহমেদ, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ডা. মাসুদুল হাসান, নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব মফিজুর রহমান এবং সেত্রেটারি ইমদাদ চৌধুরী।  

 

 

ব্রুকলীন আওয়ামী লীগ, যুবলীগসহ বিভিন্ন সংগঠনের সম্মিলিত উদ্যোগে এই দোয়া-মাহফিল ও আলোচনা সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগ নেতা নূরল ইসলাম নজরুল এবং পরিচালনা করেন যুবলীগ নেতা আবু তাহের।

 

জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্টের সকল শহীদের আত্মার মাগফেরাত ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের জীবিত সদস্যগণের দীর্ঘায়ু কামনা করে শুরুতে ক্বারী মাওলানা সুলতান মাহমুদের নেতৃত্বে মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।  

জাতিসংঘে শোক দিবস
এদিকে, ১৫ আগস্ট জাতির জনকের ৪২তম শাহাদাৎ বার্ষিকী তথা ‘জাতীয় শোক দিবস’ উপলক্ষে জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে ১৫ আগস্ট মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায়। এদিন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি শেখ মুজিবের সংগ্রামী জীবন আলোকে একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী ছাড়াও বিশিষ্টজনেরা আলোচনা করবেন।

টরন্টোতে ফোবানা সম্মেলন ১৬-১৭ সেপ্টেম্বর

টরন্টোতে ফোবানা সম্মেলন ১৬-১৭ সেপ্টেম্বর

 

ফোডারেশন অব বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েশনস ইন নর্থ আমেরিকার (ফোবানা) ৩১তম সম্মেলন আগামী ১৬ ও ১৭ সেপ্টেম্বর টরেন্টোর ডেল্টা হোটেলে (কেনেডি ও ৪০১ এর কর্নারে) অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ২ ও ৩ সেপ্টেম্বর এই সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল। 

ঈদ ও পবিত্র হজ'র  প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পূর্ব ঘোষিত ২ ও ৩  সেপ্টেম্বরের পরিবর্তে ১৬ ও ১৭ সেপ্টেম্বর এই সম্মেলন হবে বলে ফোবানা-২০১৭ এর চিফ অব মিডিয়া অ্যাডভোকেট আফিয়া বেগম জানিয়েছেন।  

এই প্রসঙ্গে ফোবানা’র চেয়ারম্যান দারা আবু জোবায়ের বলেন, মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদ এবং হজ-এর কথা বিবেচনায় নিয়ে ফোবানার তারিখ পরিবর্তন করা হয়েছে। তবে আয়োজনের সামগ্রিক প্রস্তুতি অব্যাহত রয়েছে।  

তিনি আরও জানান, উত্তর আমেরিকার প্রবাসী বাংলাদেশিদের এই আয়োজনটি একটি সার্বজনীন অনুষ্ঠান এবং টরন্টোর সর্বস্তরের বাংলাদেশিদের আকাঙ্খার প্রতীক। বড় পরিসরের এই আয়োজনকে সর্বাত্তকভাবে সফল করার জন্য আয়োজকদের সবধরনের প্রস্তুতি রয়েছে।  

আবু জোবায়ের দারা বলেন, এবারের ফোবানাকে প্রবাসীদের মনে স্মরণীয় করে রাখার জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি।  

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ, কানাডা এবং আমেরিকার জনপ্রিয় ও স্বনামধন্য শিল্পীবৃন্দ অংশগ্রহণ করবেন বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

Make Website

 

Quick Contact